Rahmania Madrasah Sirajganj

ইশরাকের নামাজের পর থেকে যুহরের নামাজ আদায়সহ মামুলাতে রহমানিয়া মাদরাসা

ইশরাকের নামাজ আদায়ের পর কিতাব বিভাগের ত্বলাবাদের যথারীতি মশকে কালামে পাক শুরু হয়, এরপর সময় হলে নাস্তা দেয়া হয়, মাদ্রাসার দেয়া নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নাস্তা অজু ও ইস্তিঞ্জা শেষ করে সকল ত্বলাবা-আসাতিযাগন মসজিদের জমায়েত হন, এখানে 15 মিনিটের মধ্যে আশআরের মাধ্যমে দুআ, ইসলামী আকাইদ সমূহ, আসমায়ে হুসনা ও তিলাওয়াতে কালামে পাক শেষ করার পর একজন উস্তাদ সকলকে নিয়ে সম্মিলিত ভাবে দুআ পরিবেশন করেন, মূলত দৈনিক দুআর মাধ্যমে লেখাপড়ার কার্যক্রম শুরু হয় এখান থেকেই, এরপর সকল বিভাগের ত্বলাবাগন নিজ নিজ দরসগাহে চলে যান, দুপুর ১২টা পর্যন্ত যথারীতি ত্বলাবা-আসাতিযাগন লেখাপড়ায় মশগুল থাকেন। এরপর খানার ঘন্টা বাজানো হয়, মাতবাখ থেকে দুপুরের খানা গ্রহণ করে খানা খেয়ে কাইলুলার পর নামাজ শুরু হওয়ার আধা ঘন্টা পূর্বে মুআজ্জিন সাহেব আযান দিলে অবশ্যই নামাজের ২০ মিনিট পূর্বে সকল প্রয়োজন শেষ করে সকলেরই মসজিদে যুহরের নামাযের উদ্দেশ্যে উপস্থিতি বাধ্যতামূলক। মসজিদে উপস্থিত হয়ে প্রথমে যুহরের ৪ রাকাত সুন্নত নামাজ এবং বাকি সময় পবিত্র কালামে পাকের তিলাওয়াত এবং ইকামতের ৫ মিনিট পূর্বে ইনফেরাদী ভাবে খাস দুআর ইহতেমাম করা হয়। এরপর ইকামত হয়, সঠিক সময়ে যুহরের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়, ইমাম সাহেব তিওয়ালে মুফাসসাল এর ক্বিরাআতের মাধ্যমে যুহরের নামাজ আদায় করান, যুহরের নামাজের পর সুন্নত নামাজ আদায় শেষে খতমে খাজেগানের আমল অনুষ্ঠিত হয়, তারপর মাদ্রাসার সমস্ত হাজতকে সামনে রেখে সম্মিলিত দুআ পরিবেশন হয়, দুআ শেষে সকল ত্বলাবা-আসাতিযাগন নিজ নিজ দরসগাহে চলে যান।