আরবী তারিখঃ এখন ১৬ শাবান ১৪৪৫ হিজরি মুতাবিক ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রোজ সোমবার, সময় রাত ১০:৫২ মিনিট
এলানঃ-
১৪৪৫-১৪৪৬ হিজরী, ২০২৪-২০২৫ ইং এর মাসিক সুন্নতী ইজতেমা সমূহ
* ২৫ এপ্রিল ২৪ ইং বৃহস্পতিবার মাগরিব-ইশা মাদরাসার সকলের জন্য
* ৩০-৩১ মে ২৪ ইং বৃহস্পতিবার ফজর-শুক্রবার মাগরিব পর্যন্ত সালেকীনদের জন্য
* ২৭ জুন ২৪ ইং বৃহস্পতিবার মাগরিব-ইশা মাদরাসার সকলের জন্য
* ২৫-২৬ জুলাই ২৪ ইং বৃহস্পতিবার ফজর-শুক্রবার মাগরিব পর্যন্ত সালেকীনদের জন্য
* ২৯ আগষ্ট ২৪ ইং বৃহস্পতিবার মাগরিব-ইশা মাদরাসার সকলের জন্য
* ২৬-২৭ সেপ্টেম্বর ২৪ ইং বৃহস্পতিবার ফজর-শুক্রবার মাগরিব পর্যন্ত সালেকীনদের জন্য
* ২৪ অক্টোবর ২৪ ইং বৃহস্পতিবার মাগরিব-ইশা মাদরাসার সকলের জন্য
* ২৮-২৯ নভেম্বর ২৪ ইং বৃহস্পতিবার ফজর-শুক্রবার মাগরিব পর্যন্ত সালেকীনদের জন্য
* ২৬ ডিসেম্বর ২৪ ইং বৃহস্পতিবার মাগরিব-ইশা মাদরাসার সকলের জন্য
* ৩০-৩১ জানুয়ারী ২৫ ইং বৃহস্পতিবার ফজর-শুক্রবার মাগরিব পর্যন্ত সালেকীনদের জন্য
* ২৭ ফেব্রুয়ারী ২৫ ইং বৃহস্পতিবার মাগরিব-ইশা মাদরাসার সকলের জন্য
* মার্চ ২৫ ইং এজতেমা সালেকীনদের জন্য

মালফুযাতে আকাবির

সর্বজনীন পেনশন স্কিম, বাস্তবতা ও শরীয়ার নিরিখে

বাংলাদেশ সরকার গত ১৭ আগস্ট ২০২৩ ‘সর্বজনীন পেনশন স্কিম, ২০২৩’ নামে একটি প্রকল্প চালু করেছে। যদিও কয়েক বছর আগে থেকে এ ধরনের প্রকল্প আসবে বলে শোনা যাচ্ছিল। সর্বশেষ গত বাজেটে এ ধরনের নির্দেশনা রাখা হয়েছে। যা আইনের মাধ্যমে বাস্তব রূপ পেয়েছে। এই সবর্জনীন পেনশন স্কিমে দেখা যাচ্ছে যে, সরকার সর্বস্তরের মানুষকে ষাট বছর বয়সের পর […]

সর্বজনীন পেনশন স্কিম, বাস্তবতা ও শরীয়ার নিরিখে Read More »

মাদরাসা পরিচালনার নিয়ম কানুন

পৃথিবীতে দ্বীন টিকিয়ে রাখার জন্য মাদরাসা জরুরী। কিন্তু মাদরাসা দ্বারা তখনই দ্বীন রক্ষার খেদমত আশা করা যায়, যখন মাদরাসার সাথে সংশ্লিষ্ট সকলে সহীহ উসূল অনুযায়ী চলবে এবং মাদরাসাকেও সহীহ উসূল অনুযায়ী চালাবে। অন্যথায় না দ্বীনের হেফাযত হবে আর না নিজেদের উন্নতি সাধন হবে বরং সময় আর অর্থ নষ্ট ছাড়া কিছুই হবে না। প্রত্যেকটা মাদরাসা যেন

মাদরাসা পরিচালনার নিয়ম কানুন Read More »

স্থানীয় ভাষায় খুৎবা প্রদানঃ একটি দালীলিক পর্যালোচনা, -মুফতি শফি কাসেমী দা. বা.

আরবী ছাড়া অন্য কোনো ভাষায় খুতবা প্রদান করা বিদ’আত ও মাকরূহে তাহরীমি। কারণ তা রাসূলুল্লাহ (সা.), সাহাবায়ে কেরাম, তাবেঈন, তাবেতাবেঈন এবং গোটা মুসলিম উম্মাহর সর্বযুগে সর্বসম্মত আমলের পরিপন্থী। জুমু’আর নামাযের আগে নবী করিম (সা.) দুটি খুতবা দিতেন। দুই খুতবার মাঝখানে অল্প সময় বসতেন। (মুসলিম শরীফ, ১/২৮৩, হাদীস-১৪২৬) রাসূল (সা.)-এর উভয় খুতবা সর্বদাই আরবী ভাষায় হতো।

স্থানীয় ভাষায় খুৎবা প্রদানঃ একটি দালীলিক পর্যালোচনা, -মুফতি শফি কাসেমী দা. বা. Read More »

কখনও সকালের নাস্তা (কিছুক্ষন যিকর) করা বাদ বিবেন না

শাইখুল ইসলাম মুফতী ত্বাকী উসমানি বলেন- একবার আমি আমার শায়খ ডাক্তার আবদুল হাইর সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলাম। ফজরের সলাতের পর শাইখের সুহবাতের(সান্নিধ্য) জন্য উনার কাছে গেলাম। শাইখ জিজ্ঞেস করলেন সকালের নাস্তা করেছি কিনা! আমি বললাম, না করিনি! শাইখ আবারও জিজ্ঞেস করলেন কারণ জানতে চেয়ে৷ আমি জানালাম দায়িত্বশীলগণ এখনো খাবার তৈরি শেষ কর‍তে পারেনি। প্রতিউত্তরে শাইখ বললেন-

কখনও সকালের নাস্তা (কিছুক্ষন যিকর) করা বাদ বিবেন না Read More »

আত্মশুদ্ধি করা ছিল রসুলের দায়িত্ব, -মুফতি রফিকুল ইসলাম আল মাদানি দা. বা.

মানবতার মুক্তিদূত মহানবী (সা.) এ ধরায় আবির্ভূত হয়েছিলেন মানব- কল্যাণের জন্য। দিশাহারা মানব জাতিকে আলোর পথ দেখানোর জন্য। তিনি প্রেরিত হয়েছিলেন অশান্ত এ বিশ্বে শান্তি ধারা প্রবাহিত করার জন্য। তাঁর ২৩ বছরের অন্যতম কর্মসূচি ছিল মানব জাতিকে আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে পূতপবিত্র করে তাদের আল্লাহর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট করা। মহান প্রভু ঘোষণা করেন, ‘আল্লাহ মুমিনদের প্রতি অবশ্যই অনুগ্রহ

আত্মশুদ্ধি করা ছিল রসুলের দায়িত্ব, -মুফতি রফিকুল ইসলাম আল মাদানি দা. বা. Read More »

আহলে হাদিসদের সাথে কথিত উদারতা ও শেষ পরিণাম, -মুফতি লুৎফর রহমান ফরায়েযী দা. বা.

প্রথম যখন লা মাযহাবী ফিতনা বিষয়ে অনলাইন ও অফলাইনে কাজ শুরু করি তখন থেকেই গালিপ্রুফ হয়ে গেছি। যতই গালি দিক শরীরে মাখাই না। নিজের কাজের উপর অটল ছিলাম। কিন্তু কষ্ট পেতাম নিজেদের ঘরানার লোকদের ব্যবহারে। তারা যখন উপদেশের ঢালি নিয়ে হাজির হতেন। শুধু লা মাযহাবী, লা মাযহাবী করেন কেন? আর কোন সমস্যা নেই? শুধু এক

আহলে হাদিসদের সাথে কথিত উদারতা ও শেষ পরিণাম, -মুফতি লুৎফর রহমান ফরায়েযী দা. বা. Read More »

নবী একজন কিন্তু মাযহাব চারটি কেন?

একদা মুহাম্মদ আমীন সফদর রহঃ এর কাছে কয়েকজন কথিত আহলে হাদীসের লোক এল। এসে হযরতের বসেই বলতে লাগল-“আমরা অনেক পেরেশানীতে আছি। বহুত পেরেশানীতে আছি”। সফদর রহঃ-“যারাই বড়দের ছেড়ে দেয়, তারা সারা জীবনই পেরেশানীতে থাকে। মওদুদী এই পেরেশানীতেই ছিল। কাদিয়ানীও এই পেরেশানীতেই ছিল। আপনারাও মনে হয় বড়দের ছেড়ে নিজেরাই সব বুঝতে চাচ্ছেন। এজন্যই পেরেশানীতে আছেন”। কথিত

নবী একজন কিন্তু মাযহাব চারটি কেন? Read More »

দেওবন্দী মাদারীসের আধ্যাত্মিক প্রতিষ্ঠাতা হচ্ছেন রসূলুল্লাহ সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, —মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলিপুরী দা. বা.

بِسْمِ اللهِ الرَّحْمٰنِ الرَّحِیْمِ۔ اَلرَّحْمٰنُ ۙ﴿۱﴾ عَلَّمَ الْقُرْاٰنَ ؕ﴿۲﴾ خَلَقَ الْاِنْسَانَ ۙ﴿۳﴾ وعن إبراهيم بن عبد الرحمن العذري قال : قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : يحمل هذا العلم من كل خلف عدوله ينفون عنه تحريف الغالين وانتحال المبطلين وتأويل الجاهلين. হামদ ও সালাতের পর- বাংলাদেশের প্রাচীনতম, বিশুদ্ধতম এবং বৃহত্তম মাদ্রাসা দারুল উলূম

দেওবন্দী মাদারীসের আধ্যাত্মিক প্রতিষ্ঠাতা হচ্ছেন রসূলুল্লাহ সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, —মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলিপুরী দা. বা. Read More »

কারা এই তথাকথিত আহলে হাদিস? মুফতি মুনসুরুল হক দা. বা.

আহলে হাদীসদেরকে আপনারা জিজ্ঞাসা করুন, ‘তোমরা কি বুখারী মানো’? কী বলবে তারা? মানে। বুখারীতে লেখা আছে, ‘একসাথে তিন তালাকে তিন তালাক’। (সহীহ বুখারী; হা.নং ৫২৫৯) তোমরা বলছো, ‘বুখারী মানো’। তাহলে এ হাদীস মানতেছো না কেনো? এবার আপনারা নিশ্চয়ই বুঝতে পারলেন, তাদের সাথে আমাদের ঝগড়াগুলো কোথায়? মনে রাখুন, তারা বলে- ১) ইজমা-ক্বিয়াস কিছু লাগবে না। ২)

কারা এই তথাকথিত আহলে হাদিস? মুফতি মুনসুরুল হক দা. বা. Read More »

সত্যিকার আহলে হাদীস কে? আহলে হাদীস শব্দ দ্বারা উদ্দেশ্য কারা?

যুগযুগ ধরে হাদীস, উসূলে হাদীস, ফিক্বহ, উসূলে ফিক্বহ এবং হাদীসের ব্যাখ্যা ও হাদীসের বর্ণনাকারীদের ইতিহাসের কিতাব সমূহের ভাষ্য মতে, যারা হাদীসের সনদ ও মতন (বর্ণনাকারী ও মূল বিষয়) নিয়ে নিবেদিত এবং হাদীস শরীফের সংরক্ষণ, হিফাযত, সঠিক বুঝ এর অনুসরণ-অনুকরণে নিজের মূল্যবান জীবন উৎসর্গ করেছেন তাদেরকেই আহলে হাদীস বা আছহাবুল হাদীস বলা হয়। চাই সে হানাফী

সত্যিকার আহলে হাদীস কে? আহলে হাদীস শব্দ দ্বারা উদ্দেশ্য কারা? Read More »