আরবী তারিখঃ এখন ১৬ জিলহজ ১৪৪৫ হিজরি মুতাবিক, ২৩ জুন ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রোজ রবিবার, সময় বিকাল ৪:৪৪ মিনিট
খানকাহ এর সুন্নতী ইজতেমা ও মারকাজী মজলিসে আইম্মাহ সমূহ
সুন্নতী ইজতেমাঃ প্রতি বছরের মাহে মুহাররম, মাহে রবিউস সানী ও মাহে রজব এর প্রথম সপ্তাহের বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার হযরাতে সালেকীনদের জন্য রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ প্রাঙ্গনে খানকাহে ইমদাদিয়া আশরাফিয়ার সুন্নতী ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে ইনশাআল্লাহ।
মারকাজী মজলিসে আইম্মাহঃ ১. মাহে শাউয়ালের শেষ শনিবার। ২. মাহে যিলহজের শেষ শনিবার। ৩. মাহে সফরের শেষ শনিবার। ৪. মাহে রবিউস সানীর শেষ শনিবার। ৫. মাহে জুমাদাল আখিরাহ এর শেষ শনিবার। ৬. মাহে রজবের শেষ সপ্তাহে বিষয় ভিত্তিক মজলিস।
বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ- ✓✓ প্রতি আরবী মাসের শেষ বৃহস্পতিবার রহমানিয়া মাদরাসার সকলের জন্য মাসিক সুন্নতী ইজতেমা হবে। ✓✓ প্রতি বছর ২০ শাবান থেকে ৩০ রমাযানুল মুবারক পর্যন্ত ৪০ দিন, রমাযানুল মুবারক এর প্রথম ১৫ দিন, রমাযানুল মুবারক এর শেষ দশক হযরাতে সালেকীনদের জন্য এতেকাফ হবে ইনশাআল্লাহ।
সুন্নতী মজলিস/মজলিসে আইম্মাহ সমূহ (আঞ্চলিক)
সুন্নতী মজলিসঃ ১. ২৯ জুন ২৪ ইং রোজ শনিবার শাহজাদপুরের গাড়াদহ ফিল্ড জামে মসজিদে সুন্নতী মজলিস। ২. ১৩ জুলাই ২৪ ইং রোজ শনিবার উল্লাপাড়ার ডেফলবাড়ী নুরানীয়া হাফিজিয়া মাদরাসায় সুন্নতী মজলিস।
মজলিসে আইম্মাহঃ ১১ জুলাই ২৪ ইং রোজ বৃহস্পতিবার চরমেটুয়ানী মসজিদে ধুকুরিয়াবেড়া ইউনিয়নের মজলিসে আইম্মাহ।

সালাম সংক্রান্ত সুন্নত ও আদব সমূহ

সালাম দেয়ার সুন্নত ও আদব সমূহ

১. সাক্ষাতের পর কথাবার্তা বলার পূর্বে সালাম প্রদান করা। দেখুনঃ তিরমিজি শরিফঃ ২/৯৯
২. ছোট বড়কে সালাম দেয়া, বড় ছোটকে সালাম দেয়া। দেখুনঃ বুখারী শরীফঃ ২/৯২১
৩. চলাচলকারী বসে থাকা ব্যক্তিকে সালাম প্রদান করা। দেখুনঃ তিরমিজি শরিফঃ ২/৯৯
৪. اَلسَّلَامُ عَلَیْکٔمْ স্পষ্ট করে বলা। দেখুনঃ সালাম ও মুসাফাহা কে আদাবঃ ৯
৫. চলাচলকারী ব্যক্তি দাঁড়িয়ে থাকা ব্যক্তিকে সালাম প্রদান করা। দেখুনঃ তিরমিজি শরিফঃ ২/১০০
৬. আরোহনকারী ব্যক্তি হেঁটে যাওয়া ব্যক্তিকে সালাম প্রদান করা। দেখুনঃ মুসলিম শরীফঃ ২/২১২
৭. বিদায়ের সময় সালাম প্রদান করা। দেখুনঃ তিরমিজি শরিফঃ ২/১০০
৮. বৈঠকে সালাম দিয়ে প্রবেশ করা। দেখুনঃ তিরমিজি শরিফঃ ২/১০০
৯. কারো ঘর-বাড়িতে গেলে প্রথমে সালাম দেয়া। দেখুনঃ রদ্দুল মুহতারঃ ৬/৪১৩
১০. পরিচিত অপরিচিত সকল মুসলমানকে সালাম দেয়া। দেখুনঃ বুখারী শরীফঃ ২/৯২১
১১. ছোট জামাআত বড় জামাআতকে সালাম দেয়া। দেখুনঃ মুসলিম শরীফঃ ২/২১২
১২. মুসলমানের সাথে যদি অমুসলিমও থাকে তাহলে اَلسَّلَامُ عَلٰي مَنِ اتَّبَعَ الْهُدٰي বলা। দেখুনঃ তিরমিজি শরিফঃ ২/১০১
১৩. মসজিদ বা খালি ঘরে প্রবেশ করলে اَلسَّلَامُ عَلَيْنَا وَ عَلٰي عِبَادِ اللّٰهِ الصَّالِحِيْنَ বলা। দেখুনঃ রদ্দুল মুহতারঃ ৬/৪১৬
১৪. ঘরওয়ালাদের ঘরে প্রবেশ করার সময় এবং ঘর থেকে বের হওয়ার সময় সালাম প্রদান করা। দেখুনঃ তিরমিজি শরিফঃ ২/৯৯
১৫. অনুপস্থিত দোস্ত-আহবারদের সালাম পৌঁছানো। দেখুনঃ তিরমিজি শরিফঃ ২/৯৯
১৬. চিঠিতে প্রথম সালাম লেখা। দেখুনঃ তিরমিজি শরিফঃ ২/১০১
১৭. সালামের সুন্নত শুধু اَلسَّلَامُ عَلَيْكُمْ বলার দ্বারাই আদায় হয়, তবুও وَ رَحْمَةُ اللّٰهِ وَ بَرَكَاتُهٗ বর্ধিত করে পড়া অত্যন্ত সওয়াবের কারণ।
দেখুনঃ সালাম ও মুসাফাহা কে আদাবঃ ৯
১৮. কোন অনুপস্থিত ব্যক্তিকে সালাম প্রেরণ করতে ‘অমুককে আমার সালাম বলবেন’ বললেই সালামের সুন্নত আদায় হয়ে যাবে, পূর্ণ সালাম বলার প্রয়োজন নেই। দেখুনঃ তিরমিজি শরিফঃ ২/৯৯
১৯. ভরপুর বৈঠকে আগন্তুক ব্যক্তি একবার সালাম দিলেই যথেষ্ট। বৈঠকের মধ্য থেকে যে কোন একজন উত্তর নিলেই ওয়াজিব আদায় হয়ে যাবে। দেখুনঃ আদাবুল মুআশারাতঃ ৫৭-৫৮

কখন সালাম দেয়া জায়েয নয়!?

১. যখন কোন ব্যক্তি অন্য ব্যক্তির সাথে দ্বীনি কোন আলোচনা করছেন। দেখুনঃ রদ্দুল মুহতারঃ ১/৬১৬
২. দ্বীনি আলোচনা চলাকালিন সালাম দেয়া নাজায়েজ, বরং সালাম ছাড়া বৈঠকে বসে যাওয়া উত্তম। দেখুনঃ রদ্দুল মুহতারঃ ১/৬১৬
৩. তিলাওয়াতে রত ব্যক্তিকে সালাম দেয়া জায়েজ নয়। দেখুনঃ রদ্দুল মুহতারঃ ১/৬১৬
৪. যিকর রত ব্যক্তিকে সালাম প্রদান জায়েজ নেই। দেখুনঃ রদ্দুল মুহতারঃ ১/৬১৬
৫. যখন কোন ব্যক্তি গুরুত্বপূর্ণ কোন কাজে লিপ্ত আছে, এবং আশঙ্কা করা হচ্ছে সালাম দিলে তার ওই কাজের ক্ষতি হবে, এমতাবস্থায় উক্ত ব্যক্তিকে সালাম না করা উত্তম। দেখুনঃ সালাম ও মুসাফাহা কে আদাবঃ ১২ পৃ
নোটঃ ফাতাওয়া শামী এর মধ্যে ওই সমস্ত ব্যক্তিদের ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে যাদের সালাম দেয়া জায়েজ নেই, বিস্তারিত দেখতে হলে ফাতাওয়া শামী ১/৬১৬ এ দেখে নেয়ার জন্য অনুরোধ করা হলো।

সালামের জওয়াব দেয়ার সুন্নত ও আদব সমূহ

১. সালাম দাতার জওয়াবে وَ عَلَيْكُمُ اَلسَّلَامُ وَ رَحْمَةُ اللّٰهِ وَ بَرَكَاتُهٗ বলা। দেখুনঃ আল আযকারঃ ২২১
২. অমুসলিম যদি মুসলমানকে সালাম দেয় তাহলে তার উত্তরে وَ عَلَيْكُمْ বলা। দেখুনঃ তিরমিজি শরিফঃ ২/৯৯, মুসলিম শরীফঃ ২১৬৩
৩. কারো সালাম প্রেরিত হলে জওয়াবে وَ عَلَیْكَ وَ عَلَیْهِمُ السَّلَامُ وَ رَحْمَةُ اللّٰهِ وَ بَرَكَاتُهٗ বা وَ عَلَیْهِمْ وَ عَلَیْكُمُ السَّلَامُ وَ رَحْمَةُ اللّٰهِ وَ بَرَكَاتُهٗ বলা।
দেখুনঃ আল আযকারঃ ২২১
৪. চিঠি সালামের উত্তরে وَ عَلَیْكُمُ السَّلَامُ وَ رَحْمَةُ اللّٰهِ وَ بَرَكَاتُهٗ লেখা বা বলে দেয়া। দেখুনঃ সালাম ও মুসাফাহা কে আদাবঃ ২১ পৃ
৫. সালামের উত্তর সালাম প্রদানকারী ব্যক্তিকে শুনিয়ে দেয়া সুন্নত। দেখুনঃ সালাম ও মুসাফাহা কে আদাবঃ ২১ পৃ

Loading