আরবী তারিখঃ এখন ১৫ জিলকদ ১৪৪৫ হিজরি মুতাবিক ২৪ মে ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রোজ শুক্রবার, সময় দুপুর ১:৫২ মিনিট
এলানঃ-
>>> ১৪৪৫-১৪৪৬ হিজরী, ২০২৪-২০২৫ ইং তে সালেকীনদের জন্য সুন্নতী ইজতেমা সমূহ <<<
* মাহে যিলক্বদের প্রথম সপ্তাহের বৃহস্পতিবার ফজর থেকে শুক্রবার মাগরিব পর্যন্ত। (আসন্ন)
* মাহে রবিউল আউয়ালের শেষ সপ্তাহের বৃহস্পতিবার ফজর থেকে শুক্রবার মাগরিব পর্যন্ত। (আসন্ন)
* মাহে রজবের প্রথম সপ্তাহের বৃহস্পতিবার ফজর থেকে শুক্রবার মাগরিব পর্যন্ত। (আসন্ন)
.....................................................................
>> ১৪৪৫-১৪৪৬ হিজরী, ২০২৪-২০২৫ ইং তে মজলিসে আইম্মাহ সমূহ (ইমাম-মুআজ্জিনদের জন্য) <<<
* মাহে শাউয়ালের শেষ শনিবার সকাল ৮টা থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত। (হয়ে গেছে)
* মাহে মুহাররমের শেষ শনিবার সকাল ৮টা থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত। (আসন্ন)
* মাহে রবিউস সানীর শেষ শনিবার সকাল ৮টা থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত। (আসন্ন)
* মাহে রজবের শেষ সপ্তাহে বিষয় ভিত্তিক সেমিনার। (আসন্ন)
*** প্রতি আরবী মাসের শেষ বৃহস্পতিবার মাদরাসার সকলের জন্য মাসিক সুন্নতী ইজতেমা।
*** প্রতি বছর ২০ শাবান থেকে ৩০ রমাযানুল মুবারক পর্যন্ত ৪০ দিন, রমাযানুল মুবারক এর প্রথম ১৫ দিন, রমাযানুল মুবারক এর শেষ দশক হযরাতে সালেকীনদের জন্য এতেকাফ।

রহমানিয়া নুরুল উলুম মাদরাসা ফরিদপুর, পাবনা।

 

মাদরাসার পরিচালনা বিধি অনুসারে রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ এর যাবতীয় নিয়ম-কানুন অত্র মাদরাসার নিয়ম-কানুন হিসেবে নির্ধারিত।

প্রতিষ্ঠাকাল

১১ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরি মুতাবিক, ১১ জুলাই ২০২২ ইং, রোজ সোমবার

মাদরাসার শিক্ষা সংক্রান্ত বিভাগ ও ভর্তির নিয়ম-কানুন সমূহ

বয়স্কদের কুরআন শরীফ শিক্ষা শুদ্ধকরন বিভাগঃ রসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, তোমাদের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ ঐ ব্যক্তি যিনি কুরআন শিক্ষা করেন এবং শিক্ষা দেন, এজন্য শুধু কুরআনের ব্যাপারে জানলে হবেনা, বরং কুরআন শুদ্ধভাবে পড়ার মতো যোগ্যতা অর্জন করতে হবে, আমাদের আশেপাশে অনেক দ্বীনি ভাই আছেন যারা খুবই চান তাদের কুরআন শুদ্ধ হোক, নচেৎ আল্লাহ তাআলার কাছে তার নামায কবুল হচ্ছেনা তিলাওয়াত অশুদ্ধ হওয়ার কারণে, এই সমস্ত দ্বীন দরদী ভাইদের জন্য যারা কুরআন শুদ্ধকরনে আগ্রহী, অত্র বিভাগ শুরু লগ্ন থেকেই সকাল ও বিকালে এক ঘণ্টা করে কুরআন শুদ্ধ করনের এই কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে, সাথে সাথে সার্বিক জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে কিভাবে রসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর সুন্নত বাস্তবায়ন হয়ে যায় এব্যাপারেও অত্র বিভাগে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়, মুহিউস সুন্নাহ শাহ আবরারুল হক হরদুঈ রহঃ এর বিশিষ্ট খলিফা, মারকাযুল ফিকরিল ইসলামী বাংলাদেশ বসুন্ধরা ঢাকার প্রতিষ্ঠাতা ফকিহুল মিল্লাত মুফতি আব্দুর রহমান রহঃ এর অনুকরণ ও শাহ আবরারুল হক হারদুঈ রহঃ এর বিশিষ্ট খলিফা শাহ মুফতি সুহাইল দাঃ বাঃ এর অনুসরণে কুরআন শুদ্ধ করণ ও সুন্নতের এই প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়৷ ভর্তি হতে মাদরাসা থেকে ভর্তি ফরম সংগ্রহ করুন, ফরম পূরণ করে মাদরাসায় এসে বাকি কাজ সম্পন্ন করুন।

মক্তব বিভাগঃ এটি প্রতিষ্ঠানের অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি বিভাগ, মূলত এই বিভাগের মাধ্যমে একজন সত্যিকারের তালিবুল ইলম এবং রসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সত্যিকারের ওয়ারিস হওয়ার হাতে খড়ি, অভিজ্ঞ ক্বারী সাহেবগণ এই বিভাগটি পরিচালনা করে থাকেন, পাশাপাশি ছাত্রদের প্রয়োজনীয় গুরুত্বপূর্ণ মাসআলা-মাসাইল, জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে রসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নত বাস্তবায়নে আমলি মশকের প্রতি সর্বচ্চ গুরুত্ব দান করা হয়৷ যে সমস্ত ত্বলাবাগন মকতব বিভাগে ভর্তি হতে ইচ্ছুক, তাদেরকে প্রথমত মাদ্রাসা থেকে দরখাস্ত ফরম সংগ্রহ করে সঠিকভাবে পূরণ করতে হবে, এরপর বিভাগীয় প্রধানের কাছে এ ফরম সত্যায়ন করিয়ে মাদ্রাসা কর্তৃক জারীকৃত নির্দেশনা মুতাবিক পরীক্ষা দিতে হবে, উত্তীর্ণ ত্বলাবাগনের নামের তালিকা দ্রুত মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ প্রকাশ করবে, এরপর উত্তীর্ণ ত্বলাবাগন মূল ফরম নাম্বারসহ গ্রহণ করে এককালীন নগদ অর্থ জমা দিয়ে ভর্তি হতে হবে।

নাযেরা-হিফযুুুল কুরআন বিভাগঃ পবিত্র কুরআনে কারিমের সহী-শুদ্ধ তিলাওয়াত চর্চার নিমিত্ত বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হাফিজে কুরআন দ্বারা বিভাগটি চালু করা হয়৷ পাশাপাশি জীবন পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ মাসাআলা-মাসাইল, সার্বিক জীবনে রসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সকল সুন্নত সমূহ বাস্তবায়ন এবং বাংলাদেশের একজন আদর্শ নাগরিক হিসেবে শুদ্ধ বাংলা ভাষা বলতে পারার আমলী মশক করানো হয়৷ যে সমস্ত ত্বলাবাগন নাযেরা-হিফজ বিভাগে ভর্তি হতে ইচ্ছুক, তাদেরকে প্রথমত মাদ্রাসা থেকে দরখাস্ত ফরম সংগ্রহ করে সঠিকভাবে পূরণ করতে হবে, এরপর বিভাগীয় প্রধানের কাছে এ ফরম সত্যায়ন করিয়ে মাদ্রাসা কর্তৃক জারীকৃত নির্দেশনা মুতাবিক পরীক্ষা দিতে হবে, উত্তীর্ণ ত্বলাবাগনের নামের তালিকা দ্রুত মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ প্রকাশ করবে, এরপর উত্তীর্ণ ত্বলাবাগন মূল ফরম নাম্বারসহ গ্রহণ করে এককালীন নগদ অর্থ জমা দিয়ে ভর্তি হতে হবে।