আরবী তারিখঃ এখন ১৬ জিলহজ ১৪৪৫ হিজরি মুতাবিক, ২৩ জুন ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রোজ রবিবার, সময় বিকাল ৫:১৭ মিনিট
খানকাহ এর সুন্নতী ইজতেমা ও মারকাজী মজলিসে আইম্মাহ সমূহ
সুন্নতী ইজতেমাঃ প্রতি বছরের মাহে মুহাররম, মাহে রবিউস সানী ও মাহে রজব এর প্রথম সপ্তাহের বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার হযরাতে সালেকীনদের জন্য রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ প্রাঙ্গনে খানকাহে ইমদাদিয়া আশরাফিয়ার সুন্নতী ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে ইনশাআল্লাহ।
মারকাজী মজলিসে আইম্মাহঃ ১. মাহে শাউয়ালের শেষ শনিবার। ২. মাহে যিলহজের শেষ শনিবার। ৩. মাহে সফরের শেষ শনিবার। ৪. মাহে রবিউস সানীর শেষ শনিবার। ৫. মাহে জুমাদাল আখিরাহ এর শেষ শনিবার। ৬. মাহে রজবের শেষ সপ্তাহে বিষয় ভিত্তিক মজলিস।
বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ- ✓✓ প্রতি আরবী মাসের শেষ বৃহস্পতিবার রহমানিয়া মাদরাসার সকলের জন্য মাসিক সুন্নতী ইজতেমা হবে। ✓✓ প্রতি বছর ২০ শাবান থেকে ৩০ রমাযানুল মুবারক পর্যন্ত ৪০ দিন, রমাযানুল মুবারক এর প্রথম ১৫ দিন, রমাযানুল মুবারক এর শেষ দশক হযরাতে সালেকীনদের জন্য এতেকাফ হবে ইনশাআল্লাহ।
সুন্নতী মজলিস/মজলিসে আইম্মাহ সমূহ (আঞ্চলিক)
সুন্নতী মজলিসঃ ১. ২৯ জুন ২৪ ইং রোজ শনিবার শাহজাদপুরের গাড়াদহ ফিল্ড জামে মসজিদে সুন্নতী মজলিস। ২. ১৩ জুলাই ২৪ ইং রোজ শনিবার উল্লাপাড়ার ডেফলবাড়ী নুরানীয়া হাফিজিয়া মাদরাসায় সুন্নতী মজলিস।
মজলিসে আইম্মাহঃ ১১ জুলাই ২৪ ইং রোজ বৃহস্পতিবার চরমেটুয়ানী মসজিদে ধুকুরিয়াবেড়া ইউনিয়নের মজলিসে আইম্মাহ।

গুরুত্বপুর্ন দুআ সমূহ

* সায়্যিদুল ইস্তিগফারঃ দেখুনঃ বুখার শরীফঃ ৮/৬৭
اَللّٰهُمَّ أَنْتَ رَبِّي لاَ إِلَهَ إِلَّا أَنْتَ، خَلَقْتَنِي وَأَنَا عَبْدُكَ، وَأَنَا عَلَى عَهْدِكَ وَوَعْدِكَ مَا اسْتَطَعْتُ، أَعُوذُ بِكَ مِنْ شَرِّ مَا صَنَعْتُ، أَبُوءُ لَكَ بِنِعْمَتِكَ عَلَيَّ، وَأَبُوءُ لَكَ بِذَنْبِي فَاغْفِرْ لِي، فَإِنَّهُ لَايَغْفِرُ الذُّنُوْبَ إِلَّا أَنْتَ.
ফজিলতঃ যে ব্যক্তি সকালে অথবা সন্ধ্যায় উপরক্ত দুআটি ইয়াকিনের সাথে পড়বে, সে ঐ দিন রাতে বা দিনে মারা গেলে অবশ্যই জান্নাতে যাবে।
* রজব ও শাবান মাসের দুআঃ
রসুলুল্লাহ সল্লøাল্লহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রজব ও শাবান মাসে এই দুআ পড়তেনঃ اَللّٰهُمَّ بَارِكْ لَنَا فِيْ رَجَبَ وَ شَعْبَانَ وَ بَلِّغْنَا رَمَضَانَ
দেখুনঃ শুআবুল ইমানঃ ৩/৩৭৫, হাদিস নং ৩৮১৫
* ঈমান রক্ষার দু’আঃ رَبَّـنَـا لَا تُـزِغْ قُـلُـوْبَـنَـا بَـعْـدَ اِذْ هَـدَيْـتَـنَـا وَهَـبْ لَـنَـا مِـنْ لَّـدُنْـكَ رَحْـمَـةً اِنَّـكَ اَنْـتَ الـوَهَّـابُ দেখুনঃ সূরা আল ইমরানঃ ৮
* হকের উপর অবিচল থাকার দু’আঃ اَللّٰهُمَّ اَرِنَا الْحَقَّ حَقًّا وَّارْزُقْنَا اتِّبَاعَهٗ، وَاَرِنَا الْبَاطِلَ بَاطِلًا وَّارْزُقْنَا اجْتِنَابَهٗ
দেখুনঃ তাফসীরে ইবনে কাসীরঃ সূরা বাকারার ২১৩ নং আয়াতের তাফসীরে দ্রষ্টব্য
* শিরক থেকে বাঁচার দু’আঃ اَللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ أَنْ أُشْرِكَ بِكَ وَأَنَا أَعْلَمُ، وَأَسْتَغْفِرُكَ لِمَا لَا أَعْلَمُ দেখুনঃ আলআদাবুল মুফরাদঃ ৭২১
* কবর যিয়ারতের দু’আঃ اَلسَّلَامُ عَلَيْكُمْ يَا اَهْلَ القُبُوْرِ يَغْفِرُ اللّٰهُ لَنَا وَلَكُمْ. اَ نْتُمْ سَلَفُنَا وَنَحْنُ بِالْاَثَرِ দেখুনঃ তিরমিযী শরিফঃ ১০৫৩
* মৃত্যুর ফিতনা থেকে বাঁচার দু’আঃ
اللَّهُمَّ إِنَّا نَعُوْذُ بِكَ مِنْ عَذَابِ جَهَنَّمَ، وَأَعُوْذُ بِكَ مِنْ عَذَابِ الْقَبْرِ، وَأَعُوذُ بِكَ مِنْ فِتْنَةِ الْمَسِيْحِ الدَّجَّالِ، وَأَعُوذُ بِكَ مِنْ فِتْنَةِ الْمَحْيَا وَالْمَمَاتِ
দেখুনঃ ইবনে মাজাহ শরীফঃ ৩৮৪০, নাসাঈ শরীফঃ ২০৬৩
* ঘরে প্রবেশের দু’আঃ اَلسَّلَامُ عَلَيْكُمْ وَرَحْمَةُ اللّٰهِ দেখুনঃ দেখুনঃ আবু দাঊদ শরীফঃ ৫০৯৬
* ঘরে প্রবেশ করার দু‘আঃ اَللّٰهُمَّ اِنِّيْ اَسْاَلُكَ خَيْرَ الْمَوْلِجِ وَخَيْرَ الْمَخْرَجِ بِسْمِ اللّٰهِ وَلَجْنَا وَ بِسْمِ اللّٰهِ خَرَجْنَا وَعَلَى اللّٰهِ رَبِّنَا تَوَكَّلْنَا
দেখুনঃ তিরমিযী শরিফঃ ১০৫৩
* ঘর থেকে বের হওয়ার দু‘আঃ بِسْمِ اللّٰهِ تَوَكَّلْتُ عَلَى اللّٰهِ. لَا حَوْلَ وَلَا قُوَّةَ اِلَّا بِاللّٰهِ দেখুনঃ আবু দাঊদ শরীফঃ ৫০৯৬, সুনানে ইবন মাজাহঃ ৩৪২৬
* ঘর বাড়ি সর্ব প্রকার ক্ষতি থেকে হেফাজতের দু’আঃ
اَللّٰهُمَّ أَنْتَ رَبِّيْ لَا إِلٰهَ إِلَّا أَنْتَ، عَلَيْكَ تَوَكَّلْتُ، وَأَنْتَ رَبُّ الْعَرْشِ الْكَرِيْمِ، مَا شَاءَ اللّٰهُ كَانَ وَمَا لَمْ يَشَأْ لَمْ يَكُنْ وَ لَا حَوْلَ وَلَا قُوَّةَ إِلَّا بِاللّٰهِ الْعَلِيِّ الْعَظِيْمِ، أَعْلَمُ أَنَّ اللّٰهَ عَلٰى كُلِّ شَيْئٍ قَدِيرٌ، وَأَنَّ اللّٰهَ قَدْ أَحَاطَ بِكُلِّ شَيْئٍ عِلْمًا، اَللّٰهُمَّ إِنِّيْ أَعُوْذُ بِكَ مِنْ شَرِّ نَفْسِيْ، وَمِنْ شَرِّ كُلِّ دَابَّةٍ أَنْتَ آخِذٌ بِنَاصِيَتِهَا، إِنَّ رَبِّيْ عَلٰى صِرَاطٍ مُسْتَقِيْمٍ
দেখুনঃ তাবারানী শরীফ (মুজামুল কাবীর)ঃ ৩৪৩
* কেউ উপকার করলে তাঁর জন্য এই বলে দু’আ পড়াঃ جَزَاكَ اللّٰهُ خَيْرًا দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ২০৩৫
* কোনো মুসলমানের সাথে সাক্ষাত হলে বলাঃ السَّلَامُ عَلَيْكُمْ وَرَحْمَةُ اللَّهِ وَبَرَكَاتُهُ দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ২৬৮৯
* সালামের উত্তরে বলাঃ وَعَلَيْكُمُ السَّلَامُ وَرَحْمَةُ اللهِ وَبَرَكَاتُهٗ দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ২৬৯২
* ঋণ পরিশোধের দু’আঃ اللَّهُمَّ اكْفِنِي بِحَلَالِكَ عَنْ حَرَامِكَ، وَأَغْنِنِي بِفَضْلِكَ عَمَّنْ سِوَاكَ দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ৩৫৬৩
* নিজের প্রশংসা শুনলে বলাঃ اللَّهُمّ لاَ تُؤَاخِذْنِي بِمَا يَقُولُونَ ، وَاغْفِرْ لِي مَا لاَ يَعْلَمُونَ وَاجْعَلْنِي خَيْرًا مِمَّا يَظُنُّونَ
দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ২০৩৫
* কেউ বরকতের দুআ করলে বলাঃ وَفِيكَ بَارَكَ اللَّهُ দেখুনঃ ইবনুস সুন্নীঃ ২৭৮
* হাঁচি দিলে পড়াঃ الْحَمْدُ لِلَّهِ দেখুনঃ বুখারী শরীফঃ ৬২২৪
* যে ব্যক্তি হাঁচি শুনবে সে বলবেঃ يَرْحَمُكَ اللَّهُ দেখুনঃ বুখারী শরীফঃ ৬২২৪
* এরপর হাঁচিদাতা বলবেঃ يَهْدِيكُمُ اللَّهُ وَيُصْلِحُ بَالَكُمْ দেখুনঃ বুখারী শরীফঃ ৬২২৪
* শিশুদের বদ নজর থেকে রক্ষার দু‘আঃ أَعُوْذُ بِكَلِمَاتِ اللهِ التَّامَّةِ مِنْ كُلِّ شَيْطَانٍ وَهَامَّةٍ وَمِنْ كُلِّ عَيْنٍ لَامَّةٍ
দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ২০৬০
* সন্তান প্রার্থনায় এই দু’আ পড়াঃ رَبِّ هَبْ لِي مِنَ الصَّالِحِينَ দেখুনঃ সূরা আছছফফাতঃ ১০০
* সন্তান প্রার্থনায় এই দু’আ পড়াঃ رَبِّ هَب لِی مِن لَّدُنۡکَ ذُرِّیَّةً طَیِّبَةً اِنَّکَ سَمِیۡعُ الدُّعَآءِ দেখুনঃ সূরা আল ইমরানঃ ৩৮
* নিঃসন্তান হওয়া থেকে বাঁচার জন্য পড়াঃ رَبِّ لَا تَذَرْنِي فَرْدًا وَأَنتَ خَيْرُ الْوَارِثِينَ দেখুনঃ সূরা আম্বিয়াঃ ৮৯
* নেক পরিবার প্রার্থনায় এই দু’আ পড়াঃ رَبَّنَا هَبْ لَنَا مِنْ أَزْوَاجِنَا وَذُرِّيَّاتِنَا قُرَّةَ أَعْيُنٍ وَّاجْعَلْنَا لِلْمُتَّقِينَ إِمَاماً দেখুনঃ সূরা আলফুরকানঃ ৭৪
* আয়না দেখার দু’আঃ اَ لْحَمْدُ لِلّٰهِ اَللّٰهُمَّ كَمَا حَسَّنْتَ خَلْقِيْ فَحَسِّنْ خُلُقِيْ দেখুনঃ ইবনুস সুন্নীঃ ১৩৬
* সূর্য উঠার সময় এই দু’আ পড়াঃ اَ لْحَمْدُ لِلّٰهِ الَّذِىْ اَقَالَنَا يَوْمَنَا هَذَا وَلَمْ يُهْلِكْنَا بِذُنُوْبِنَا দেখুনঃ মুসলিম শরীফঃ ৮২২
* সূর্যাস্তের সময় এই দু’আ পড়াঃ اَللّٰهُمَّ هَذَا اِقْبَالُ لَيْلِكَ وَاِدْبَارُ نَهَارِكَ وَاَصْوَاتُ دُعَاتِكَ فَاغْفِرْ لِيْ দেখুনঃ আবু দাউদ শরীফঃ ৫৩০
* বাজারে গিয়ে পড়াঃ لَا اِلٰهَ اِلَّااللّٰهُ وَحْدَهٗ لَا شَرِيْكَ لَهٗ . لَهُ الْمُلْكُ وَلَهُ الْحَمْدُ. يُحْيِيْ ويُمِيْتُ وَهُوَ حَيٌّ لَا يَمُوْتُ. بِيَدِهِ الْخَيْرُ وَهُوَ عَلٰی كُلِّ شَيْءٍ قَدِيْرٌ
দেখুনঃ সুনানে তিরমিজিঃ ৩৪২৮
* রাগ দমনের দু’আঃ اَعُوْذُ بِاللهِ مِنَ الشَّيْطَانِ الرَّجِيْمِ দেখুনঃ বুখারী শরীফঃ ৬০৪৮
* দুনিয়া-আখেরাতের সার্বিক কল্যাণের জন্যে এই দু’আ পড়াঃ اللهم رَبَّـنَا آتِنَا فِي الدُّنْيَا حَسَنَةً وَفِي الآخِرَةِ حَسَنَةً وَقِنَا عَذَابَ النَّارِ
দেখুনঃ সুনানে ইবনে মাজাহঃ ৩৮৪৮
* রহমতের বৃষ্টির জন্য পড়াঃ اللَّهُمَّ اسْقِنَا غَيْنًا مُغِيثًا مَّرِيئًا نَافِعًا غَيْرَ ضَارٍ عَاجِلا غَيْرَ اجِلٍ‏ দেখুনঃ আবু দাউদ শরীফঃ ১১৬৯
* আকাশ মেঘাচ্ছন্ন দেখলে পড়াঃ اَللّٰهُمَّ اِنَّا نَعُوْذُبِكَ مِنْ شَرِّمَا اُرْسِلَ بِهٖ দেখুনঃ মুসলিম শরীফঃ ৮৯৯
* প্রচণ্ড ঝড়, বাতাস, তুফান বইতে শুরু করলে পড়াঃ اَللّٰهُمَّ اِنِّىْ اَسْاَ لُكَ خَيْرَهَا وَخَيْرَ مَا فِيْهَا وَخَيْرَ مَا اُرْسِلَتْ بِهٖ وَاَعُوْذُ بِكَ مِنْ شَرِّهَا وَشَرِّ مَا فِيْهَا وَشَرِّ مَا اُرْسِلَتْ بِهٖ দেখুনঃ সুনানে তিরমিজিঃ ৩৪৪৯
* বৃষ্টি শুরু হলে ও হওয়ার সময় পড়াঃ اَللّٰهُمَّ صَيِّبًا نَافِعًا দেখুনঃ বুখারী শরীফঃ ৯৭৫
* মেঘের গর্জন শুনলে পড়াঃ اَللّٰهُمَّ لاَ تَقْتُلْنَا بِغَضَبِكَ وَلَا تُهْلِكْنَا بِعَذَابِكَ وَعَافِنَا قَبْلَ ذٰلِكَ দেখুনঃ মুসনাদে আহমাদঃ ৫৭৬৩
* বেশি বৃষ্টি হলে পড়াঃ اَللّٰهُمَّ حَوَالَيْنَا وَلَا عَلَيْنَا দেখুনঃ মুসলিম শরীফঃ ১/২৯৪
* অতিবৃষ্টি বন্ধের জন্য পড়াঃ اللَّهُمَّ حَوَالَيْنَا وَلاَ عَلَيْنَا، اللَّهُمَّ عَلى الأَكَامِ وَالْجِبَالِ وَالْأَجَامِ وَالظِّرَابِ وَالْأَوْدِيَةِ ، وَمَنَابِتِ الشَّجَرِ
দেখুনঃ বুখারী শরীফঃ ৯৫৮
* কারো থেকে জুলুমের আশংকা হলে পড়াঃ اَللّٰهُمَّ اِنَّا نَجْعَلُكَ فِيْ نُحُوْرِهِمْ وَنَعُوْذُ بِكَ مِنْ شُرُوْرِهِمْ দেখুনঃ আবু দাউদ শরীফঃ ১৫৩৭
* মনে ওয়াসওয়াসা আসলে পড়াাঃ اٰ مَنْتُ بِاللّٰهِ وَرُسُلِهٖ দেখুনঃ মুসলিম শরীফঃ ১৩৪/৬২৩, ৬২৪-৬২৫
* মন মতো কিছু হলে পড়াঃ اَلْحَمْدُ لِلّٰهِ الَّذِيْ بِنِعْمَتِهٖ تَتِمُّ الصَّالِحَاتُ দেখুনঃ ইবনে মাজাহ শরীফঃ ৩৮০৩
* মনের ব্যতিক্রম কিছু হলে পড়াঃ اَ لْحَمْدُ لِلّٰهِ عَلٰی كُلِّ حَالٍ দেখুনঃ ইবনে মাজাহ শরীফঃ ৩৮০৩
* সকল কঠিন রোগ থেকে মুক্তিতে পড়াঃ اَللَّهُمَّ اِنِّىْ اَعُوْذُ بِكَ مِنَ الْبَرَصِ وَ الْجُنُوْنِ وَ الْجُذَامِ وَمِنْ سَىِّءِ الْاَسْقَامِ
দেখুনঃ আবু দাউদ শরীফঃ ১৫৫৪
* সার্বিক সুস্থতায় আয়াতে শেফা, সকাল-বিকাল অথবা দিনে একবার পরা, এবং পানিতে ফু দিয়ে পানি পান করাঃ
وَيَشْفِ صُدُورَ قَوْمٍ مُّؤْمِنِينَ . وَشِفَاء لِّمَا فِي الصُّدُورِ . يخْرُجُ مِن بُطُونِهَا شَرَابٌ مُّخْتَلِفٌ أَلْوَانُهُ فِيهِ شِفَاء لِلنَّاسِ . وَنُنَزِّلُ مِنَ الْقُرْآنِ مَا هُوَ شِفَاء وَرَحْمَةٌ لِّلْمُؤْمِنِينَ . وَإِذَا مَرِضْتُ فَهُوَ يَشْفِينِ . قُلْ هُوَ لِلَّذِينَ آمَنُوا هُدًى وَشِفَاء
দেখুনঃ মামুলাতে আকাবির রহ.
* কোথাও ব্যথা পেলে ব্যাথা উপশমের জন্য ব্যথার স্থানে হাত রেখে ৩ বার “বিসমিল্লাহ” বলে এরপর ৭ বার এই দুআ পড়াঃ أَعُوذُ بِاللَّهِ وَقُدْرَتِهِ مِنْ شَرِّ مَا أَجِدُ وَأُحَاذِرُ দেখুনঃ ইবনুস সুন্নীঃ ৫৭৮
* জ্বর হলে এ দু‘আ পড়াঃ بِسْمِ اللّٰهِ الْكَبِيْرِ اَعُوْذُ بِاللّٰهِ الْعَظِيْمِ مِنْ شَرِّ كُلِّ عِرْقٍ نَّعَّارٍ وَمِنْ شَرِّ حَرِّ النَّارِ দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ২০৮০
* কুনুতে নাযেলাঃ اَللَّهُمَّ اهْدِنِيْ فِيْمَنْ هَدَيْتَ، وَعَافِنِيْ فِيْمَنْ عَافَيْتَ، وَتَوَلَّنِيْ فِيْمَنْ تَوَلَّيْتَ، وَبَارِكْ لِيْ فِيْمَا أَعْطَيْتَ، وَقِنِيْ شَرَّمَا قْضَيْتَ؛ إِنَّكَ تَقْضِىْ وَلاَ يُقْضَى عَلَيْكَ، وَإنَّهُ لاَ يَذِلُّ مَنْ وَّالَيْتَ، وَلاَ يَعِزُّ مَنْ عَادَيْتَ، تَبَارَكْتَ رَبَّنَا وَتَعَالَيْتَ
দেখুনঃ সুনানে আবু দাউদঃ ১৪২৫, মেরকাতঃ ২/৩২৪-৩২৭
* কোনো সমস্যার সম্মুখীন হলে পড়াঃ يَا حَيُّ يَا قَيُّوْمُ بِرَحْمَتِكَ اَسْتَغِيْثُ দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ৩৫২৪
* কষ্ট, মসিবতে বা দরিদ্রতায় পরলে এই দু’আ পড়াঃ لاَ حَوْلَ وَلاَ قُوَّةَ إِلاَّ بِاللَّهِ وَلاَ مَنْجَا مِنَ اللَّهِ إِلاَّ إِلَيْهِ দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ৩৬০১
* বিভিন্ন সমস্যা থেকে রক্ষায় পড়াঃ اَللّٰهُمَّ اِنِّىْ اَعُوْذُبِكَ مِنْ جَهْدِالْبَلَاءِ وَدَرْكِ الشَّقَاءِ وَسُوْءِ الْقَضَاءِ و شَمَاتَةِ الْاَعْدَاءِ
দেখুনঃ বুখারি শরীফঃ ৭/১৫৫
* দারিদ্রতা ও অপরের কাছে হাতপাতা থেকে আশ্রয়ে পড়াঃ اَللّٰهُمَّ إِنِّيْ أَعُوْذُ بِكَ مِنَ الْبُؤْسِ وَالتَّبَاؤُسِ
দেখুনঃ আল-মুজামুল কাবিরঃ ৫/৩১৫
* দুশ্চিন্তা বা বিপদগ্রস্ত হলে পড়াঃ لاَ إِلَهَ إِلاَّ أَنْتَ سُبْحَانَكَ إِنِّي كُنْتُ مِنَ الظّالِمِينَ দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ৫/৫২৯
* শত্রু বা যালিমের সম্মুখীন হলে পড়াঃ اللَّهُمَّ أَنْتَ عَضُدِي، وَأَنْتَ نَصِيرِي، بِكَ أَحُولُ وَبِكَ أَصُولُ، وَبِكَ أُقاتِلُ দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ৫/৫৭২
* শত্রু বা যালিমের সম্মুখীন হলে পড়াঃ حَسْبُنا اللَّهُ وَنِعْمَ الْوَكِيلُ দেখুনঃ বুখারী শরফিঃ ৫/১৭২
* কারো অত্যাচারের ভয় করলে ৩ বার এই দুআ পড়া, فُلاَنٍ এর জায়গায় অত্যাচারীদের নাম উল্লেখ করাঃ
اَللَّهُ أَكْبَرُ، اَللَّهُ أَعَزُّ مِنْ خَلْقِهِ جَمِيعاً، اَللَّهُ أَعَزُّ مِمَّا أَخَافُ وَأَحْذَرُ، أَعُوذُ بِاللَّهِ الَّذِي لاَ إِلَهَ إِلاَّ هُوَ، الْمُمْسِكِ السَّمَوَاتِ السَّبْعِ أَنْ يَقَعْنَ عَلَى الْأَرْضِ إِلاَّ بِإِذْنِهِ، مِنْ شَرِّ عَبْدِكَ فُلاَنٍ، وَجُنُودِهِ وَأَتْبَاعِهِ وَأَشْيَاعِهِ، مِنْ الْجِنِّ وَالإِنْسِ، اللَّهُمَّ كُنْ لِي جَاراً مِنْ شَرِّهِمْ، جَلَّ ثَنَاؤُكَ وَعَزَّ جَارُكَ، وَتَبَارَكَ اسْمُكَ، وَلاَ إِلَهَ غَيْرُكَ
দেখুনঃ আলআদাবুল মুফরাদঃ ৭০৮/৭১৩
* হারানো জিনিস উদ্ধারের জন্য পড়াঃ يَا هَادِيَ الضَّالِّ، وَرَادَّ الضَّالَّةِ ارْدُدْ عَلَيَّ ضَالَّتِي بِعِزَّتِكَ وَسُلْطَانِكَ فَإِنَّهَا مِنْ عَطَائِكَ وَفَضْلِكَ
দেখুনঃ মুছান্নাফে ইবনে আবী শাইবাঃ ৩০৩৩৮
* সাপের ভয় হলে এ দু‘আ পড়াঃ اِنَّا نَسْئَلُكَ بِعَهْدِ نُوْحٍ وَبِعَهْدِ سُلَيْمَانَ بْنِ دَاؤُدَ اَنْ لَا تُؤْذِيْنَا. দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ১৪৮৯, ১৪৮৫
* চরিত্র হননের ভয় হলে নারী পড়বেঃ اللَّهُمَّ إِنْ كُنْتُ آمَنْتُ بِكَ وَبِرَسُولِكَ فَلاَ تُسَلِّطْ عَلَىَّ الْكَافِرَ‏ দেখুনঃ বুখারী শরীফঃ ৬৯৫০
* জাহান্নাম থেকে বাঁচতে ফজর ও মাগরিবের নামাযের পরে সাত বার পড়াঃ اللَّهُمَّ أَجِرْنِى مِنَ النَّارِ দেখুনঃ সহিহ ইবনে হিব্বানঃ ২০২২
* সকালে ও সন্ধ্যায় যে ব্যক্তি এ দু‘আটি কমপক্ষে ৩ বার পাঠ করবে আল্লাহ অবশ্যই তাকে সন্তুষ্ট করবেনঃ
رَضِيْتُ بِالهِٰ رَبًّا وَبِالإِسْلاَمِ دِينًا وَبِمُحَمَّدٍ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ نَبِيًّا وَرَسُوْلاً দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ৩৩৮৯
* হঠাৎ মুসীবত থেকে হেফাজতে এই দুাআটি সকালে ও সন্ধ্যায় কমপক্ষে ৩ বার পাঠ করাঃ
بِاسْمِ الهِٰক الَّذِيْ لَا يَضُرُّ مَعَ اسْمِهِ شَيْءٌ فِي الْأَرْضِ وَلَا فِيْ السَّمَاءِ وَهُوَ السَّمِيْعُ العَلِيْمُ দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ৩৩৮৮
* চিন্তা, পেরেশানি, ঋণ, অলসতা ও কাপুরুষতা দূর করতে ধারাবাহিক পড়াঃ اَللّٰهُمَّ اِنِّيْ اَعُوْذُبِكَ مِنَ الْهَمِّ وَالْحُزْنِ وَ اَعُوْذُبِكَ مِنَ الْعَجْزِ وَ الْكَسَلِ وَ اَعُوْذُبِكَ مِنَ الْجُبْنِ وَ الْبُخْلِ وَ اَعُوْذُبِكَ مِنْ غَلَبَةِ الدَّيْنِ وَ قَهْرِ الرِّجَالِ দেখুনঃ আবু দাউদ শরীফঃ ১৫৫৫
* ফজর থেকে চাশত পর্যন্ত অজিফার থেকে ভারী দুআঃ سُبْحَانَ اللَّهِ وَبِحَمْدِهِ عَدَدَ خَلْقِهِ وَرِضَا نَفْسِهِ وَزِنَةَ عَرْشِهِ وَمِدَادَ كَلِمَاتِهِ
দেখুনঃ মুসলিম শরীফঃ ৭০৮৮
* নতুন চাঁদ দেখে পড়াঃ اَللَّهُ أَكْبَرُ، اَللَّهُمَّ أَهِلَّهُ عَلَيْنَا بِالْأَمْنِ وَالْإِيمَانِ، وَالسَّلاَمَةِ وَالْإِسْلاَمِ، وَالتَّوْفِيقِ لِمَا تُحِبُّ رَبَّنَا وَتَرْضَى، رَبُّنَا وَرَبُّكَ اللَّهُ
দেখুনঃ মুসনাদে আহমাদঃ ১৩৯৭
* শবে ক্বদরের রাতে পড়াঃ اَللّٰهُمَّ اِنَّكَ عَفُوٌّ تُحِبُّ الْعَفْوَ فَاعْفُ عَنِّيْ দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ৩৫২২
* সন্তান লাভকারীকে এই দু’আ পড়াঃ بَارَكَ اللَّهُ لَكَ فِي الْمَوْهُوبِ لَكَ، وَشَكَرْتَ الْوَاهِبَ، وَبَلَغَ أَشُدَّهُ، وَرُزِقْتَ بِرَّهُ দেখুনঃ আলআযকারঃ ৮৫৩
* মজলিসের কাফফারায় এই দুআ পড়াঃ سُبْحَانَ اللهِ وَبِحَمْدِه سُبْحَانَكَ اللَّهُمَّ وَبِحَمْدِكَ، أَشْهَدُ أَنْ لاَ إِلَهَ إِلاَّ أَنْتَ، أَسْتَغْفِرُكَ وَأَتُوبُ إِلَيْكَ
দেখুনঃ তিরমিযী শরীফঃ ৩৪৩৩
* নতুন বছর এলে এই দুআ পড়াঃ اَللَّهُمَّ أَدْخِلْهُ عَلَيْنَا بِالْأَمْنِ وَالْإِيمَانِ ، وَالسَّلَامَةِ وَالْإِسْلَامِ ، وَرِضْوَانٍ مِنَ الرَّحْمَنِ ، وَجِوَارٍ مِنَ الشَّيْطَانِ
দেখুনঃ মু’জামুস সাহাবাহঃ ৩/৫৪৩
* ইস্তেখারার দুআঃ اَللّٰهُمَّ إِنِّيْ أَسْتَخِيْرُكَ بِعِلْمِكَ وَأَسْتَقْدِرُكَ بِقُدْرَتِكَ وَأَسْأَلُكَ مِنْ فَضْلِكَ الْعَظِيْمِ، فَإِنَّكَ تَقْدِرُ وَلاَ أَقْدِرُ وَتَعْلَمُ وَلاَ أَعْلَمُ وَأَنْتَ عَلاَّمُ الْغُيُوْبِ، اللّٰهُمَّ إِنْ كُنْتَ تَعْلَمُ أَنَّ هٰذَا الأَمْرَ خَيْرٌ لِيْ فِيْ دِيْنِيْ وَمَعَاشِىْ وَعَاقِبَةِ أَمْرِيْ فَاقْدُرْهُ لِيْ وَيَسِّرْهُ لِيْ ثُمَّ بَارِكْ لِيْ فِيْهِ، وَإِنْ كُنْتَ تَعْلَمُ أَنَّ هٰذَا الأَمْرَ شَرٌّ لِيْ فِيْ دِيْنِيْ وَمَعَاشِىْ وَعَاقِبَةِ أَمْرِيْ فَاصْرِفْهُ عَنّيْ وَاصْرِفْنِيْ عَنْهُ وَاقْدُرْ لِيَ الْخَيْرَ حَيْثُ كَانَ ثُمَّ أَرْضِنِيْ بِهٖ দেখুনঃ বুখারী শরীফঃ ৫৯৪০
* যাদু থেকে নিরাপদ থাকতে ফজর ও মাগরিবের নামাজের পর ধারাবাহিক পড়তে থাকাঃ
أَعُوْذُ بِوَجْهِ اللّٰهِ الْعَظِيْمِ الَّذِيْ لَيْسَ شَيْءٌ أَعْظَمَ مِنْهُ، وَبِكَلِمَاتِ اللّٰهِ التَّامَّاتِ الَّتِيْ لَايُجَاوِزُهُنَّ بَـرٌّ وَّلَا فَاجِرٌ، وَبِأَسْمَاءِ اللّٰهِ الْحُسْنىٰ كُلِّهَا مَا عَلِمْتُ مِنْهَا وَمَا لَمْ أَعْلَمْ، مِنْ شَرِّ مَا خَلَقَ وَذَرَأَ وَبَرَأَ
দেখুনঃ মুআত্তা মালেকঃ ৩৫০২, মুসনাদে আহমাদঃ ১৫৪৬১

* রোগ থেকে হিফাজতের জন্য শেফার আমলঃ মুরশিদুস সুন্নাহ হযরতওয়ালা মুফতি সুহাইল দা. বা. কর্তৃক

১. দরুদ শরীফ ৩ বার, ২. সুরা ফাতিহা ৩ বার, ৩. আয়াতুল কুরসী ৩ বার, ৪. সুরা ইখলাস ৩ বার, ৫. সুরা ফালাক ৩ বার, ৬. সুরা নাস ৩ বার, ৭. দরুদ শরীফ ৩ বার।

১. দরুদ শরীফ ১১ বার, ২. يَا سَلَامُ ১৪২ বার, ৩. দরুদ শরীফ ১১ বার।

নিয়মঃ যদি রোগ হয়ে যায় তবে ৩ বারের পরিবর্তে ৭ বার পড়বে। উপরের দুইটি আমল সকাল-বিকাল অথবা দিনে একবার করা, এবং পানিতে ফু দিয়ে পানি পান করবে ও ঘরে ছিটাবে।

* মামলা-মুকাদ্দমা সমূহ সমাধানের জন্য গুরুত্বপূর্ণ আমলঃ মুহিউসস সুন্নাহ শাহ আবরারুল হক হরদুয়ী রহ. কর্তৃক

নিজের বিরুদ্ধে মুকাদ্দমা দায়ের করা হলে অধিকহারে يَا حَفِيْظُ পড়তে থাকা।

নিজে কারো বিরুদ্ধে মুকাদ্দমা দায়ের করলে অধিকহারে يَا لَطِیْفُ পড়তে থাকা । দেখুনঃ মাজালিসে আবরার

* ইমতেহানে ভালো নাম্বার পওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ আমলঃ মুহিউসস সুন্নাহ শাহ আবরারুল হক হরদুয়ী রহ. কর্তৃক

লেখা-পড়ার মেহনত ঠিক রেখে প্রতি ফরজ নামাজের পর ২১ বার يَا ناصرُ পড়া । দেখুনঃ মাজালিসে আবরার

* যাদুর ক্ষতি থেকে বাচতে গুরুত্বপূর্ণ আমলঃ মুহিউসস সুন্নাহ শাহ আবরারুল হক হরদুয়ী রহ. কর্তৃক

সকাল-সন্ধ্যা সুরা ইখলাস, সুরা ফালাক, সুরা নাস তিন তিন বার করে পরে নিজের উপর দম করা। দেখুনঃ মাজালিসে আবরার

Loading